জনাব সফিউল্লাহ আল মুনির

শফিউল্লাহ আল মুনির। টাঙ্গাইলে তিনি পরিচিত দানবীর, জনদরদী, সমাজসেবক ও দরিদ্র মানুষের অতি আপনজন হিসেবে। টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। তার পিতা আলহাজ শায়খ মোহাম্মদ ইয়াকুব আলী পীর সাহেব। তার পিতা ওই সময়ে এলাকার প্রথম গ্র্যাজুয়েট ছিলেন। তিনি বাঘিল কে কে উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক ছিলেন। এরপর তিনি ঢাকা শিক্ষাবোর্ড এবং পরবর্তী সময়ে মহাহিসাব নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের হিসাবরক্ষক কর্মকর্তা হিসেবে কর্মজীবন শেষ করেন। শফিউল্লাহ আল মুনিরের পিতা একজন কামিল ও বুজুর্গ ছিলেন। পশ্চিম টাঙ্গাইলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তার অগণিত মুরিদ, ভক্ত, অনুসারী রয়েছে।

কর্মজীবন

শফিউল্লাহ আল মুনির সফলভাবে উচ্চশিক্ষা শেষ করার পর বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন অংশীদারদের সঙ্গে স্থানীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে  উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ হিসেবে কাজ করেন। ২০০৮ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ইনডেক্স গ্রুপ। গ্রুপ প্রতিষ্ঠার পর বিশ্বব্যাংক, এডিবি সহ বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার সঙ্গে স্থানীয় পর্যায়ে ৪২টি প্রকল্প সফলভাবে সমাপ্ত করেন। ক্রমান্বয়ে তিনি এলপিজি, পেট্রো কেমিক্যাল,অকটেন বুস্টার, শিল্পায়িত কৃষি খাত সহ বহুমুখী ব্যবসাক্ষেত্রে একজন সফল উদ্যেক্তায় পরিনত হন । এরই ধারাবাহিকতায় ইনডেক্স গ্রুপ এখন দেশের অন্যতম শিল্প পরিবার।

সমাজসেবা

শফিউল্লাহ আল মুনির কর্মজীবনের শুরু থেকেই টাঙ্গাইলের তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন। তাদের প্রয়োজনে এগিয়ে গিয়েছেন সাহায্য-সহযোগিতা নিয়ে। টাঙ্গাইল সদর থেকে শুরু করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা, অসহায় মানুষ, কন্যাদায়গ্রস্ত পিতা ও মেধাবী ছাত্রদের সহায়তা করে আসছেন। দাঁড়িয়েছেন বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে। এলাকার সামাজিক, ধর্মীয় উৎসব, পূজা-পার্বণে তার দানের হাত অবারিত। গত ১০ বছরে টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মাদ্রাসা, হিন্দু উপাসনালয়, এতিমখানা, কবরস্থান তার সহযোগিতা পেয়ে ধন্য হয়েছে। এছাড়া তার পিতা-মাতার নামে প্রতিষ্ঠিত ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে টাঙ্গাইল জেলার ৬০০ ছাত্রছাত্রীকে মাসিক ভিত্তিতে উচ্চশিক্ষা বৃত্তি দিয়ে যাচ্ছেন।

টাঙ্গাইল সদর (৫ আসনের) ১২ টি ইউনিয়নের ১৮টি ওয়ার্ড পর্যায়ে রয়েছে তার বিশাল কর্মীবাহিনী, যারা প্রতিটি বাড়িতে বাড়িতে ভোটার সচেতনতা কার্যক্রম এবং নিয়মিত উঠান বৈঠক পরিচালনা করে থাকে। এই বিশাল কর্মিবাহিনীর মাধ্যমে তিনি তৃণমূল পর্যায়ে উন্নয়ন কার্যক্রম অংশগ্রহন করে থাকে।

শফিউল্লাহ আল মুনির গ্রামের বাড়িতে ফয়েজী রব্বানী দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন। তিনি টাঙ্গাইল সদরের আল্লামা ইয়াকুব আলী (রঃ) কলেজ, ফয়েজী রাব্বানী এতিমখানা, ফয়েজী রাব্বানী আলিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিনা মূল্যে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

ক্রিড়া সংগঠক

শফিউল্লাহ আল মুনির ক্রীড়াজগতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। দেশের ক্রীড়াজগতের প্রতি ক্ষেত্রে রয়েছে তার প্রাজ্ঞ নেতৃত্বের ছোঁয়া। তার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশের হকির অনেক উন্নতি হয়েছে। এরই স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নেতৃত্ব দিয়েছন। হকি, আর্চারি, ব্যাডমিন্টন, কাবাডি, রোয়িং, ভারত্তোলন, মহিলা ক্রিকেট, দাবা সহ নানা ধরনের খেলাধুলার উন্নয়নে তিনি ব্যক্তিগতভাবে সহায়তা করেছেন। পাশাপাশি ইনডেক্স গ্রুপও সহায়তা অব্যাহত রেখেছে। তার সফল নেতৃত্ত্বে ৩২ বছর পর বাংলাদেশ সফল ভাবে ১০ম হিরো এশিয়া কাপ টুর্নামেন্ট আয়োজন করে এবং এর স্বিকৃতি স্বরুপ তাকে এশিয়া হকি ফেডারেশনের এর ইভেন্ট স্ট্র্যাটেজি এন্ড ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনিত করা হয়, এছাড়াও প্রথমবারের মতো ঢাকায় অনুষ্ঠিত এশিয়া আর্চারি সাংগঠনিক কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি।

ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক ও সাংগঠনিক অংশগ্রহঃ 

সভাপতি, বাংলাদেশ সাইক্লিং ফেডারেশন।

চেয়ারম্যান, ইভেন্ট স্ট্র্যাটেজি এন্ড ডেভেলপমেন্ট কমিটি, এশিয়ান হকি

ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ভারত্তোলন ফেডারেশন ।

ভাইস চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ আর্চারি ফেডারেশন ।

চেয়ারম্যান, হকি কমিটি ও স্থায়ী সদস্য, ঢাকা মোহামেডান স্পোর্টিং লিমিটেড।

ভাইস চেয়ারম্যান, ঢাকা ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব।

চেয়ারম্যান, ক্রিকেট এবং হকি উন্নয়ণ কমিটি, ঢাকা ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাব।

আজীবন দাতা সদস্য, ঢাকা ওয়ারী ক্লাব।

কাউন্সিলর বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন ।

সদস্য, আর্মি গলফ ক্লাব, ঢাকা  ।

সদস্য, টাঙ্গাইল রাইফেলস ক্লাব, টাঙ্গাইল ।

প্রতিষ্ঠাতা, আল্লামা ইয়াকুব আলী কলেজ ।

প্রতিষ্ঠাতা,ফয়েজ-এ-রাব্বানীয়া দাখিল মাদ্রাসা ।

যোগাযোগ

ইনডেক্স গ্রুপ, ৫ম তলা, ৫০- হাবিব সুপুর মার্কেট, গুলশান-১, ঢাকা-১২১২।

ফোন ঃ ০২ ৯৮৫০৮৪৭, ০২ ৯৮৫০৮৪৯, ০২ ৯৮৫০৮৫৬।

মোবাইল ঃ ০১৭১৯ ৭২১ ৭৮৭

ইমেইলঃ index@indexbd.org